আল্লাহ কিয়ামতের দিন যাদের দিকে তাকাবেন না

আল্লাহ কিছু ব্যক্তির দিকে তাকাবেন না কিয়ামতের দিন ওই কঠিন সময়ে। দুনিয়াতে তারা আল্লাহর রহমতে সব সুখ শান্তি পেলেও তাদের কিছু কর্মকাণ্ডের জন্য কিয়ামতের দিন আল্লাহ তাদের ওপর রেগে থাকবেন। তারা সেদিন আল্লাহর সুদৃষ্টি থেকে বঞ্চিত হবেন। তাদের সঙ্গে আল্লাহ তাআলা কথা বলবেন না।

তাদেরকে কঠিন শাস্তি দিবেন। যারা আল্লাহর সঙ্গে কৃত অস্বীকার ও শপথকে তুচ্ছ বিনিময়ে বিক্রি করে আল্লাহ তাআলা পবিত্র কোরআনে ইরশাদ করেছেন, ‘নিশ্চয়ই যারা আল্লাহর সঙ্গে কৃত অস্বীকার এবং নিজেদের শপথকে তুচ্ছ মূল্যে বিক্রিয় করে, এরা আখিরাতে কোনও অংশই পাবে না এবং আল্লাহ কিয়ামতের দিন তাদের সঙ্গে কথা বলবেন না, তাদের দিকে দৃষ্টিপাত করবেন না, তাদের পবিত্র করবেন না। বস্তুত তাদের জন্য আছে যন্ত্রণাদায়ক শাস্তি।’

(সুরা আলে ইমরান: ৭৭) খোঁটা দানকারী আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী করিম (সা.) বলেছেন, তিন ধরণের লোক এমন আছে, মহান আল্লাহ যাদের সঙ্গে কথা বলবেন না, কিয়ামতের দিন তাদের দিকে (রহমতের দৃষ্টিতে) তাকাবেন না এবং তাদের পবিত্র করবে না বরং তাদের জন্য রয়েছে কঠিন শাস্তি। আমি (আবু হুরায়রা) বললাম, হে আল্লাহর রাসুল, তারা কারা? ওরা তো ক্ষতিগ্রস্ত!

তিনি বলেন, টাখনুর নিচে কাপর পরিধানকারী, ব্যবসার সামগ্রী মিথ্যা শপথ দিয়ে বিক্রয়কারী এবং কাউকে কিছু দান করার পর তার খোঁটা দাতা।’ (মুসলিম, ঈমান অধ্যায়, হাদিস নম্বর: ২৯৪) অন্য হাদিসে এসেছে ‘লুঙ্গির যে পরিমাণ অংশ টাখনুর নিচে থাকবে, ওই পরিমাণ জাহান্নামে যাবে।’ (বুখারি, হাদিস নম্বর ৫৭৮৭) পোশাকের মাধ্যমে অহংকার ও বড়ত্ব প্রকাশকারী আবদুল্লাহ ইবনে উমর (রা.) থেকে বর্ণিত রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘মহান আল্লাহ কিয়ামতের দিন ওই ব্যক্তির দিকে (রহমতের দৃষ্টিতে) তাকাবেন না, যে অহংকারবশত পোশাক প্রলম্বিত ও প্রদর্শিত করে।’

(বুখারি, হাদিস: ৫৮৫৬) বৃদ্ধ ব্যভিচারী, মিথ্যাবাদী শাসক ও অহংকারী দরিদ্র আবু হুরায়রা (রা.) থেকে বর্ণিত, নবী করিম (সা.) ইরশাদ করেন, আল্লাহ তাআলা কিয়ামতের দিন তিন শ্রেণির লোকের সঙ্গে কথা বলবেন না, তাদের পবিত্র করবেন না এবং তাদের দিকে রহমতের দৃষ্টি দেবেন না। তাদের জন্য রয়েছে বেদনাদায়ক শাস্তি। তারা হলো বৃদ্ধ ব্যভিচারী, মিথ্যাবাদী শাসক ও অহংকারী দরিদ্র।’

(মুসলিম শরীফ, ঈমান অধ্যায়, হাদিস নম্বর: ২৯৬) রুকু ও সিজদার মাঝখানে যারা মেরুদণ্ড সোজা করে না ত্বলাক বিন আলী (রা.) থেকে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেছেন, ‘মহান আল্লাহ কিয়ামতের দিন ওই নামাজির দিকে (রহমতের দৃষ্টিাতে) তাকাবেন না, যে রুকু ও সিজদার মাঝাখানে সোজা হয়ে দাঁড়ায় না।’ (তিরমিজি, হাদীস: ২৬৫)

মাতা-পিতার অবাধ্য সন্তান, নারী হয়ে পুরুষের সাদৃশ্য অবলম্বনকারী ও দাইয়ুস আবদুল্লাহ বিন আমর (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেছেন, তিন ধরণের মানুষের দিকে আল্লাহ তাআলা কিয়ামতের দিন দৃষ্টিপাত করবেন না। মাতা-পিতার অবাধ্য, পুরুষের সদৃশ অবলম্বনকারী নারী এবং দাইয়ুস। আর তিন প্রকার লোক জান্নাতে যাবে না। মাতা-পিতার অবাধ্য, মদ পানে আসক্ত এবং অনুদানের পর খোঁটাদাতা।’

(মুসনাদ আহমদ, হাদিস নম্বর : ৬১১) সমকামী আবদুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, রাসুলুল্লাহ (সা.) ইরশাদ করেছেন, আল্লাহ তাআলা কিয়ামতের দিন ওই ব্যক্তির দিকে দৃষ্টিপাত করবেন না, যে ব্যক্তি পুরুষের সঙ্গে কিংবা স্ত্রীর সঙ্গে পায়ুপথে শারীরিক সম্পর্ক স্থাপন করে।’

(তিরিমিজি, হাদিস নম্বর: ১১৭৬) আমরা যেন সবাই উল্লেখিত বিষয়গুলো থেকে নিজেকে বিরত রাখতে পারি। আল্লাহর সন্তুষ্টির জন্য যেন সবাই ইবাদতে মশগুল থাকি, মহান আল্লাহ তাআলা যেন আমাদের কবুল করে নেন। আমিন।

Sharing is caring!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *